পরিচয়

কুরআনুল কারীমে আল্লাহ্‌ বলিয়াছেন মানুষকে পিতৃপরিচয়ে ডাকতে। “তোমরা তাদেরকে তাদের পিতৃপরিচয়ে ডাক। এটাই আল্লাহর কাছে ন্যায়সঙ্গত ……।” [সুরা আল-আহযাব, ৫] মহানবী হযরত মুহাম্মাদ ছাল্লাল্লাহু য়ালাইহি ওয়া সাল্লাম নিজের নামের শেষে পিতৃপরিচয় ছাড়া যারা অন্য পরিচয় ব্যবহার করে তাদের প্রতি অত্যন্ত কঠোর কথা বলিয়াছেন। হযরত সাঈদ ইবনে যুবায়ের হযরত ইবনে আব্বাস (রা)কে বলতে শুনেছেন যে, রসূল (স) বলেছেন: ‘যে কেউ নিজেকে বাবার নাম ছাড়া অন্য নামে ডাকবে তার উপর আল্লাহ, ফিরিশতা ও সমগ্র মানুষের লা‘নত বর্ষিত হবে।’ (মুসনাদে আহমাদ) ইমাম বুখারীও (র) এই হাদীসটি হযরত সা‘দ (রা) সূত্রে বর্ণনা করেছেন।

হযরত সা‘দ ও হযরত আবু বাকরা (রা) হতে বর্ণিত, তাঁরা প্রত্যেকে বলেছেন: আমার দু’ কান শুনেছে এবং আমার অন্তর মুহাম্মদ (স) এর এ কথা সংরক্ষণ করেছে যে, মহানবী (স) বলেছেন: ‘যে ব্যক্তি জেনেশুনে নিজেকে নিজের পিতা ছাড়া অন্যের সাথে সংযুক্ত করে তার জন্য জান্নাত হারাম হয়ে যাবে।’ (ইবনে মাজাহ)

হযরত আব্দুল্লাহ ইবন আমর (রা) থেকে বর্ণিত, তিনি মহানবী হযরত মুহাম্মদ (স) থেকে বর্ণনা করেছেন যে, তিনি (স) বলেছেন: যে কেউ নিজের বাবা ব্যতীত অন্যের পরিচয়ে পরিচয় দেয় সে জান্নাতের গন্ধও পাবে না, যদিও জান্নাতের সুঘ্রাণ সত্তর বছর হাঁটার রাস্তার দূরত্ব থেকেও পাওয়া যাবে। (মুসনাদে আহমাদ)

কিন্তু দাজ্জাল আপনাকে ভিন্ন শিক্ষা দিবে। এজন্য দাজ্জাল তার নারীবাহিনীকে নিযুক্ত করিয়াছে। এই নারীবাহিনীর অগ্রভাগে আছে নারীবাদীরা। ইহাদের একজন হইল বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন। যিনি মনে হয় বাংলায় নারীদের নামের সাথে স্বামীর নাম যুক্ত করার কুপ্রথা সর্বপ্রথম চালু করিয়াছেন।

উনারা বুঝিয়াছিলেন, এইভাবে নারীর নামের শেষে স্বামীর নাম লাগাইয়া দিতে পারিলে প্রথমত কুরআন ও হাদীসের বিরোধিতা করা হইবে। আর দ্বিতীয়ত নারী তালাকপ্রাপ্ত বা বিধবা হইলে তার পুনরায় বিবাহ হইবার পথ কঠিন করিয়া দেওয়া যাইবে। এক নাম কয়বার পরিবর্তন করা যায়। বাস্তবেও তাহাই হইয়াছে। আজকের আধুনিক সমাজে তালাকপ্রাপ্ত বা বিধবা নারীর বিবাহ কঠিন হইয়া পড়িয়াছে। ইহাই হইল সামাজিক ভারসাম্যহীনতা। ইহাই দাজ্জালের পরিকল্পনা।

মহানবী ছাল্লাল্লাহু য়ালাইহি ওয়া সাল্লামের পুণ্যবতী স্ত্রী-গণও তাহাদের নামের শেষে মুহাম্মদ যুক্ত করিয়া গর্বিত হোন নাই। বরং তাহারা তাহাদের পিতৃপরিচয়ই যথেষ্ট মনে করিয়াছেন। যেমন আয়েশা সিদ্দিকা রাযি। নাম থেকেই বুঝা যায় তিনি আবু বকর সিদ্দিকের (রা) মেয়ে। কিন্তু আজকের আধুনিক নারীগণ নিজ নামের সাথে স্বামীর নাম যুক্ত করিয়া ইহুদি খ্রিস্টানদের অনুসরণ করিতেছে।

লা’নত পড়ুক বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের প্রতি। হাদীসের ভাষ্যমতে। নবীজী ছাল্লাল্লাহু য়ালাইহি ওয়া সাল্লাম যাহা বলিয়াছেন তাহার চেয়ে অন্য কিছু আর কি হইতে পারে?

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s