ইসলামী ব্যাংক- সুদের হালালীকরণ ব্যবস্থা

murabaha

সারা বিশ্বের ইসলামী ব্যাংকগুলো অশুভ অনৈতিক পদ্ধতি উদ্ভাবনের মাধ্যমে রিবাকে পাশ কাটানোর উদ্দেশ্যে কৌশলে বরং রিবাকে বৈধতা প্রদানের প্রচেষ্ঠা চালাচ্ছে। সরল প্রাণ মুসলিম জনগণকে সুদি-ব্যাংকিং এর বিকল্প হিসেবে তারা যা উপস্থাপন করছে তা মূলত রিবারই ছদ্মরূপ ছাড়া আর কিছুই নয়। উদাহরণ স্বরূপ বলা যায়, তারা মুরাবাহা নামক একটি পরিভাষা কৌশলে ব্যবহার করে এবং ত্রুটিপূর্ণভাবে তাকে সংজ্ঞায়িত করে। কিন্তু বাস্তবিক ক্ষেত্রে জনসাধারণকে প্রচ্ছন্নভাবে ধোঁকা দিয়েই এই ধরনের লেনদেন করা হয় যা নিশ্চিতভাবেই রিবার প্রভাব মুক্ত নয়। এই মুরাবাহা প্রকল্পের আওতায় কোন দ্রব্য নগদ মূল্যে ক্রয় করে এবং বেশি মূল্যে তা বাকিতে বিক্রি করে। এক্ষেত্রে ব্যাংকের যুক্তি হচ্ছে এই যে, যেহেতু এ ধরনের লেনদেনে ক্রেতা ও বিক্রেতার মধ্যে দ্রব্যের মূল্য সম্পর্কে আগেই সমঝোতা হয়ে থাকে সেহেতু এ ধরেনের লেনদেন হালাল।
.
যদি কোন ব্যাংক বাজার থেকে ১০ লাখ টাকা দিয়ে একটি গাড়ি ক্রয় করে এবং সে বাজারেই নগদ ১৭ লাখ টাকায় বিক্রয় করে তবে এই লেনদেনটি হবে সন্দেহজনক। কারণ যদি বাজারে ১০ লাখ টাকায় গাড়িটি পাওয়া যায় তাহলে কেও ১৭ লাখ টাকা দিয়ে ব্যাংকের কাছ থেকে সেই একই গাড়ি কেন কিনতে যাবে? সেক্ষেত্রে যদি কোন ক্রেতার বাজারদর সম্পর্কে ধারণা না থাকে এবং সে অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে তাকে ঠকিয়ে ৭ লাখ টাকা বেশি আদায় করা হয়, এ ধরনের প্রতারণাও রিবার অন্তর্ভুক্ত। হাদীসে ইরশাদ হয়েছে-

আনাস বিন মালিক (রা.) থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ (ﷺ) বলেছেন, “একজন মুসতারসালকে (বাজারদর সম্পর্কে সে জানেনা এমন ক্রেতা) ঠকানো রিবার অন্তর্ভুক্ত।“ (বায়হাকী)
.
যদি কোন ক্রেতা বাজার দর সম্পর্কে জানার পরও ১৭ লাখ টাকা দিয়ে সে গাড়িটি ক্রয় করে তাহলে বুঝতে হবে এ ধরনের অস্বাভাবিক লেনদেনের মধ্যে নিশ্চয়ই কোন গলদ কিংবা কোন অন্তর্নিহিত কারণ আছে। নয়তো ক্রেতা মানসিক ভারসাম্যহীন। সেক্ষেত্রে লেনদেনটি অবৈধ হবে।
.
অপরদিকে ব্যাংক যদি গাড়িটি নগদ ১০ লাখ টাকা দিয়ে কিনে ১৭ লাখ টাকায় বাকিতে বিক্রি করে তবে মূল্য বৃদ্ধির যথাযথ কারণ এখানে সময়ের উৎপাদক (ঋণ দানের মাধ্যমে সুদ গ্রহণ) ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না। এ ধরনের লেনদেনে সময়ের সাথে সাথে টাকার পরিমাণও বেড়ে যায়। তাই এই অবস্থায় শুধু টাকাই টাকা উৎপাদনে সক্ষম হয়ে যায়। এ ধরনের লেনদেনের সাথে রাসুল (ﷺ) এর হাদিস অনুযায়ী এটি অবশ্যই রিবাভিত্তিক লেনদেন।
.
যে সমস্ত পথহারা মুসলিমরা কৌশলে উপস্থাপিত মুরাবাহাকে হালাল বলে মনে করে তাকে আঁকড়ে ধরে আছেন তাদের আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা কে ভয় পাওয়া উচিত। কারণ তারা মুরাবাহাকে হালাল বলে প্রচার করে সাধারণ মুসলিম জনগণকে প্রতারণা করছেন, এই কাজের তাদের কোন কল্যাণ তো হবেই না বরং পথভ্রষ্টকারী হিসেবে তাদের শাস্তি দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেয়া হবে। কেননা আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’আলা পবিত্র কুর’আনে ইরশাদ করেছেন, “হে আমাদের রব! এরাই হলো সেসব লোক যারা আমাদের বিভ্রান্ত করেছিল কাজেই এদের আগুনের আজাব দ্বিগুণ করে দিন; তখন তিনি বলবেন, প্রত্যেকের জন্যই দ্বিগুণ শাস্তি রয়েছে, কিন্তু তোমরা তা জ্ঞাত নও ।” (সূরা আ’রাফ ৭:৩৮)

“Our lord, these had misled us, so give them a double punishment of fire. He will say, “For each is double, but you do not know.” (A’raf 38)
.
.
(এটি হল ইসলামিক ব্যাংকিং সিস্টেম নিয়ে শাইখ ইমরান নযর হোসেন হাফিযাহুল্লাহ’র মত। উপরের লেখাটি বাংলাদেশি একজন আলেমের বই থেকে হুবহু তুলে দিলাম, ইসলামিক ব্যাংকিং নিয়ে উভয় শাইখ একই মত প্রকাশ করেছেন (আল্লাহ তাদেরকে দাজ্জালী সৈন্য থেকে হেফাজত করুক)। বই এবং লেখকের নাম গোপনেই থাক)

লিখেছেনঃ Kaisar Ahmed

Advertisements

2 responses to “ইসলামী ব্যাংক- সুদের হালালীকরণ ব্যবস্থা

  1. ইনসটলমেন্টে বেশী দামে জিনিস কেনাও সুদ। বিষয়টা খেয়াল করেছেন Kaisar Ahmed ভাই? ঠিক একইভাবে মোবাইলে বেশী দামে বাকীতে রিচার্জ করাও সুদ।

    Kaisar Ahmed- জি ভাই। যদি নগদে এক দাম এবং বাকীতে নিলে আরেকদাম, তাহলে নিশ্চিত ভাবে বুঝা যায় বাকিতে নেয়ার দামটি সময়ের কারনেই বৃদ্ধি পেয়েছে। আর মূল্য যদি সময়ের জন্য বৃদ্ধি পায় তবে তা সুদ।

    Like

  2. কায়সার ভাই, একটা উচ্চমার্গের চিন্তা আলোর ঝল্কানির মতো মনে এলো। আল্লাহ্‌ তায়ালা তিনি নিজেকে সময় বলেছেন। যদি আল্লাহ্‌ তায়ালা নিজেকে সময় বলে থাকেন তাহলে এর আর্থিক মূল্য কিভাবে হতে পারে?

    Kaisar Ahmed- জি সময় অত্যন্ত জটিল বিষয়। আল্লাহ বলেছেন, আমিই সময়। তাই এটা ব্যাখ্যা করা আরো জটিল হয়ে পরে। সুদের ক্ষেত্রে হল -আমি টাকা ঋণ দিলাম এবং সময়ের উপর ভিত্তি করে টাকায় সুদ যোগ হয়ে যাবে। অন্য ক্ষেত্রে লাভ হল- আমি বাসা ভাড়া দিলাম, এখন সময়ের উপর ভিত্তিতে ভাড়াটিয়া আমাকে টাকা দিবে। উভয় ক্ষেত্রে সেবা দিয়ে সময়ের ভিত্তিতে টাকা আয় করা যায়। তবে একটি হারাম একটি হালাল। সময় জটিলতা আমার বুঝার বাহিরে।

    Like

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s