চারুকলাতে

চারুকলাতে মুসলমান যায় এ কথা কে বলেছে? মুসলমান চারুকলায় যাবে কেন? সেখানে গরুর মাংস খাওয়া নিয়ে মারামারি হোক বা লাঠালাঠি হোক এতে মুসলমানদের কি সেটাই আমি এখনো বুঝতে পারলাম না। — মুসলমান সেখানে গেলেই না পরে তাদের উপর আক্রমণের প্রশ্ন। মুসলমানেরা অপবিত্র স্থানে যাবে কেন আগে এ প্রশ্ন সল্ভ করতে হবে। পরে দ্বিতীয় প্রশ্ন।

খবরের লিঙ্ক

বাঙলা নববর্ষ

বছরের প্রথম দিন যদি কুরআন তিলাওয়াত দিয়ে শুরু করেন আর ভাবেন একটা ভালো কাজ দিয়ে বছরের প্রথম দিন শুরু করলাম, বিশ্বাস করেন এটা বিদয়াত। বছরের প্রথম দিন যদি মেহমানদারি করেন আর ভাবেন মেহমানদারি নবী রাসূলদের সুন্নত। বছরের প্রথম দিন একটা সুন্নত কাজ করি, বিশ্বাস করেন এটা বিদয়াত।

বছরের প্রথম দিন যদি ভালো কাপড় পড়েন আর ভাবেন আল্লাহ্‌ সুন্দর, তিনি সুন্দরকে পছন্দ করেন। বিশ্বাস করেন আপনার এই ভালো কাপড় পড়া আল্লাহ্‌র অসন্তুষ্টির কারণ হবে।

পবিত্র কুরআনের সতর্কবাণী, আল্লাহ্‌ বলেন “শয়তান তাদের কার্যবলী তাদের নিকট শোভন করেছে এবং তাদেরকে সৎপথ চলা থেকে ফিরিয়ে দিয়েছে, ফলে তারা সৎপথ পায় না। -(সুরা নামল, আয়াত ২৪)।

ইসলাম পরিপূর্ণ। একে দয়া করে আর পরিপূর্ণ করতে যাবেন না। আখিরাতে নাযাত চাইলে ইসলামে যতটুকু আছে ততটুকু মানেন। টু দ্য পয়েন্ট মানেন। খারাপ ছাত্রদের মতো খাতা ভরে লিখে ফেল করবেন না। ভালো ছাত্রদের মতো টু দ্য পয়েন্ট আমল করে পাশ করে যান।

# পহেলা বৈশাখ

শাঁখের কড়াত

শিক্ষিত শ্রেণীর আধুনিক মুসলমানদের মডারেট ফেরকা একটা শাঁখের কড়াতের মধ্যে থাকে। না পারে ইসলাম ছাড়তে, না পারে শেরেক ছাড়তে। পহেলা বৈশাখে উৎসবও করতে মন চায়, নামাযও পড়তে মন চায়। সন্তানের জন্মদিনে দুই রাকাত নামায পড়ে, কুরআন তিলাওয়াত করে। পহেলা বৈশাখ হিন্দুদের, জন্মদিন খ্রিস্টানদের। আসলে কখনো এই ধরনের শেরক মিশ্রিত আমল গ্রহণ করা হবে না। আল্লাহ্‌র জন্য অন্তরের সবটুকু জায়গা খালি করলে তবেই ঈমান ও আমল গ্রহণযোগ্য হবে। যেমন ইব্রাহীম য়ালাইহিস সালাম স্বীয় পুত্রকে আল্লাহ্‌র হুকুমের সামনে কুরবানী করে মুসলিম জাতিকে এই শিক্ষাই দিয়েছেন। ইব্রাহীম য়ালাইহিস সালামের তাওহীদের শিক্ষা গ্রহণ করা ভিন্ন কেউ মুসলমান হতে পারবে না। আল্লাহ্‌ স্বয়ং হযরত মুহাম্মাদ ছাল্লাল্লাহু য়ালাইহিস সালামকে আদেশ দিয়েছেন ইব্রাহীম য়ালাইহিস সালামের শিক্ষা গ্রহণ করার জন্য। শাঁখের কড়াত থেকে বের হওয়ার জন্য ইব্রাহীম য়ালাইহিস সালামের শিক্ষার কোন বিকল্প নেই।

বাবার হোটেলে অপসংস্কৃতি

‘বাবার হোটেল’ জিনিসটা আর কোথাও নেই। ইউরোপীয় সভ্যতায় নেই, ইসলামেও নেই। ইসলামে পুত্র বালেগ হলে পিতার দায়িত্ব শেষ। আর কন্যা যতদিন না পাত্রস্থ হয়। আমাদের এখানে এমএ পাস পুত্রেরও বাবার হোটেলে ঠাঁই হয়ে যায়।

এখানে পুত্র কন্যাদের প্রাইভেট কোচিং থাকে। দেরী করে বাসায় ফিরে শুধু বললেই হয়, আজকে কোচিংয়ে স্পেশাল ক্লাস হয়েছে। তাহলেই ভাত রেডী। ব্যস, ভাত খেয়ে কানের মধ্যে বল্টু গুঁজে দরজা আটকে দিলেই হলো। একমাত্র ভূমিকম্প ছাড়া আর কিছুই তাকে বের করতে পারবে না। আহ, এ বড় আরামের হোটেল।

“তুমি তো জানো জান, তোমাকে দেয়ার মতো আমার কিছুই নেই। না তোমার হিযাবের ব্যবস্থা করতে পারব, না তোমাকে দু’ আয়াত কুরআন পড়ে শোনাতে পারব। না তোমার জন্য দু’ বেলা হালাল রিযিকের ব্যবস্থা করতে পারব। আমার শুধু আছে একটি Yolo অন্তর যা দিয়ে আমি ২৫ পয়সা রেটে তোমার সাথে কথা বলতে পারব। তারপর অন্য অফার আসলে কেটে পড়ব।”

যতদিন বাবার হোটেল থাকবে, ততদিন ভ্যালেন্টাইন ডের রমরমা ব্যবসা থাকবে।

বিশ্ব ভালোবাঁশ দিবস
বিশ্ব ঘৃণা দিবস

ভ্যালেনটাইনওয়ালা

বাংলাদেশে ফকিরনিরও একটা সংসার থাকে। ভ্যালেনটাইনওয়ালা গুলো এমনই ফকিরনি যে ২০০ থেকে ২০০০ টাকার মধ্যে সংসারের আরাম নিয়ে ফেলতে চায়। ৫০ টাকার ভিউকার্ড, ২০ টাকার গোলাপফুল আর বাকী যা থাকে তা দিয়ে রিকশাভাড়া, হোটেলভাড়া, মোবাইল বিল ইত্যাদি। এমন ফকিরনি এরা। এক মাস সংসার চালাতে বললে ভয়ের চোটে পেট খারাপ হয়ে যায়।

ফাদার’স ডে এর নেপথ্যে

লিখেছেন —সামীউর রহমান শামীম

Fathers Day

খ্রিস্টীয় সংস্কৃতির নিদর্শন

.
.
ইংরেজিতে “Father’s Day” বাংলায় “পিতৃ দিবস” কিংবা “বাবা দিবস”। আমার মতে, বাবা দিবসটি তাদের জন্য যারা গির্জার পুরোহিতকে ফাদার ডেকে অভ্যস্ত। কারণ, গির্জার ফাদার ছাড়া তাদের জন্মদাতা পিতার সন্ধান তাদের মায়েরাও দিতে পারে না। তারা পালন করবে বাবা দিবস। আমরা না।
.
বললাম, ইউরোপ আমেরিকার সভ্যতার কথা। এখন আসি, গতকাল যারা বাবা দিবসে বাবার প্রতি ভালোবাসা দেখিয়ে উজাড় করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন, তাদের উদ্দেশ্যে বলি, ভালোবাসার কথাটা কি ফেসবুকেই সীমাবদ্ধ রেখেছেন নাকি আপনার জনককে কথাটা জানিয়েছেন! ফেসবুকের স্ট্যাটাসের মতো সুন্দর করে………
.
বাবা দিবসটি কবে? ১৯ জুন?? না! বাবা দিবস হলো, প্রতি জুন মাসের ৩য় রবিবার। এ বছর জুন মাসের ৩য় রবিবার ১৯ তারিখ, তাই এ দিনেই দিবসটি পালিত হলো। গত বছর জুনের ৩য় রবিবার ছিল ২১ জুন, তাই গত বছর ২১ জুনেই দিবসটি পালিত হয়েছে।
.
আচ্ছা! জুন মাসের ৩য় “রবিবার” বাবা দিবস। “রবিবার” কেন? অন্য কোন দিন কেন নয়? প্রশ্নটা আপনার মনে একবারও আসলো না?? রবিবার কাদের পবিত্র দিন?? যাদের পবিত্র দিন, তারাই এই দিবসটির উদ্ভাবক।
.
খ্রিস্টানরা এই দিবসের উদ্ভাবক। এই দিবসের উদ্ভাবন হয় এক খ্রিস্টান পুরোহিতের কথায়। ১৯০৮ সালের ৫ই জুলাই, আমেরিকার পশ্চিম ভার্জেনিয়ার ফেয়ারমন্টের এক গির্জায় এই দিনটি প্রথম পালিত হয়।
.
বিস্তারিত দেখুন উইকিপিডিয়ায়।
.
আজকাল যুগ যামানা খুব সহজ। আপনি কি বাবা দিবস নিয়ে স্ট্যাটাস দেয়ার আগে উইকিপিডিয়া থেকে একটা চক্কর লাগিয়ে দেখে আসতে পারতেন না যে, দিবসটি কীভাবে এলো? কে চালু করলো?
.
সুতরাং কোনো অজুহাত গ্রাহ্য নয়। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পরিষ্কার এবং পবিত্র ঘোষণা শুনে নিন,
.
عن ابن عمر قال قال رسول الله صلى الله عليه وسلم من تشبه بقوم فهو منهم
.
অর্থাৎ ইবনে উমর (রা.) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “যে ব্যক্তি অন্য সম্প্রদায়, জাতি বা কওমের অনুকরণ করবে, সে তাদের মধ্যে গণ্য হবে।”
.
[সুনানে আবূ দাউদ, হা. ৪০৩১; মুসনাদে আহমাদ; মিশকাতুল মাসাবীহ, হা. ৪৩৪৭; সনদ সহীহ।]
.
এই হাদীসের সনদকে আল্লামা ইবনে হাজার আসকালানী (রহ.) হাসান বলেছেন, ফাতহুল বারীতে। আল্লামা ইবনে তাইমিয়া (রহ.) জায়্যিদ বলেছেন, ইক্তিযাউস সিরাতাল মুস্তাকীমে।
.
সহীহ বুখারী এবং মুসলিমের হাদীসের একটি অংশ, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,
.
المرء مع من أحب
.
অর্থাৎ “ব্যক্তি তার সাথে থাকবে যাকে সে ভালোবাসে।”
.
খ্রিস্টানদের দিবস ভালোবেসে আপনি তাদের সাথে থাকতে চান কিনা,,,,, নিজেই সিদ্ধান্ত নিন।

ভন্ড বাঙালীয়ানা নয়, আমাদের আসল বাঙালী সংস্কৃতির খোঁজে

moktob

তিলক, ঢোলক, কল্কি, হুক্কা, বাদ্য বাজনা, মোমবাতি পূজা, আগুন পূজা, পানি পূজা, মাজার আর মিনার পূজা, দুর্গা, গনেশ, রাম, ঠাকুর, দিদি, বৌদি, বেলেল্লাপনা, পহেলা বৈশাখ, চড়ক গাছ, বৈশাখী মেলা, ইলিশ মাছ আর পান্তার প্রসাদ, হুতোম প্যাঁচা, মুখোশ, জন্মদিন, মৃত্যুদিন, থার্টি ফার্স্ট নাইট আমাদের বাঙ্গালী সংস্কৃতি নয়।

কারণ আমাদের পূর্বপুরুষরা একদিন ঘৃণাভরে এ সংস্কৃতিকে পরিহার করেছিলেন। এগুলো সনাতন সংস্কৃতি। দু-একটি নব্য আমদানীকৃত। যেমন থার্টি ফার্স্ট নাইট।

যে সংস্কৃতি আমাদের পূর্বপুরুষরা পরিহার করেছিলেন সে সংস্কৃতি আমাদের সংস্কৃতি হতে পারে না। আমরা আমাদের সভ্য হওয়ার বিষয়ে আমাদের পূর্বপুরুষদের নিকট দায়বদ্ধ।

যে সংস্কৃতি আমাদের পূর্বপুরুষরা লালন করেছেন আমরা সে সংস্কৃতিরই ধারক ও বাহক। এটাই আসল বাঙ্গালী সংস্কৃতি। আমরা পরিত্যক্ত সনাতনী সংস্কৃতি বর্জন করে আমাদের পূর্বপুরুষদের গৃহীত সংস্কৃতি লালন করতে চাই। এতেই আমাদের গর্ব। এভাবে আমরা আমাদের পূর্ববর্তীদের ঋণ শোধ করতে চাই।

আসল বাঙালী সংস্কৃতিঃ

কুরআন তিলাওয়াত করা, সালাত আদায় করা, পর্দা করা, সুদ ঘুষ থেকে বেঁচে থাকা, মা বাবাসহ গুরুজনদের খেদমত করা, দান সদকা করা, আত্মীয় ও প্রতিবেশীদের খোঁজ খবর করা, হজ্ব করা, জানাজার নামায পড়া, জিহাদ করা, টুপী-দাড়ী রাখা, আতর লাগানো, জুব্বা পড়া এগুলো হচ্ছে আসল বাঙ্গালী সংস্কৃতি। অর্থাৎ মুসলিম চেতনা ধারণ করাই হচ্ছে মূল বাঙ্গালী সংস্কৃতি। এক হাজার বছরের পূর্বে মাটি চাপা পড়া শিরকী চেতনা মাটি খুঁড়ে বের করে আনার নাম বাঙালীয়ানা নয়। বরং শিরকের ওপর বিজয়ী ইসলামকে বরণ করার নামই বাঙালীয়ানা।

আমার বাপ-চাচাদের তুলনায় আমার দাদা বেশী ধার্মিক ছিলেন। মাটির সানকিতে হয়তো পান্তাভাত কাঁচামরিচ খেতেন ঠিকই, কিন্তু তিনি ছিলেন একজন প্র্যাকটিসিং মুসলিম। আমার দাদার উপরের দিকে গেলে আরো বেশী ধার্মিকতা পাওয়া যায়। কিন্তু আমরা আমাদের পূর্ব পুরুষদের ইসলামপ্রীতি দেখি না বা অনুসরণ করি না। দেখি তাদের পান্তাভাত খাওয়া। তারা কখনো নারী-পুরুষ গায়ে পায়ে রং মেখে বেলেল্লাপনা করতেন না। তারা প্রতিদিন সকালে কুরআন তিলাওয়াত করতেন। কোনদিন সুদ-ঘুষ-দুর্নীতি করাতো দূরের কথা এগুলো চিনেনও নাই। আমার দাদা তার এক ছেলেকে কুরআনে হাফেজ বানিয়েছেন। কিন্তু আমার বাপ-চাচারা তাদের কোন ছেলেকে কুরআনে হাফেজ বানায়নি। আমার দাদা-পরদাদা তারাই ছিলেন প্রকৃত বাঙ্গালী। তারা তাদের নবজাতক সন্তানদের আযানের ধ্বনির মাধ্যমে পৃথিবীতে স্বাগত জানাতেন। মুখে কথা ফুটলেই কালিমা তাইয়্যিবা শিক্ষা দিতেন। হাঁটা শিখলে মক্তবে পাঠাতেন। তারা শিরকের বিরুদ্ধে ইসলামকে জয়যুক্ত করেছিলেন। ইসলামের সূচনালগ্নেই বাঙালীরা ইসলাম কবুল করেছেন। যে মুহূর্তে তাদের কাছে ইসলামের দাওয়াত এসেছে তারা সত্য গ্রহণ করতে পিছপা হননি। এখনকার প্রজন্ম তাদের গৌরবময় বাঙালীয়ানা অতীত ভুলে গেছে। তারা উদ্দাম নৃত্য, মূর্তিপূজা, অশ্লীলতা ও বেহায়াপনার নাম দিয়েছে বাঙালীয়ানা, অথচ যা কোনদিনও বাঙালীয়ানা ছিল না।