নারী ও পারফিউম

পারফিউমের সুন্দর অর্থ হাদিসে আছে। আমার মনে হয় এতো সুন্দর অর্থ আর কেউ দেয়নি যে সংজ্ঞা রাসূল ছাল্লাল্লাহু য়ালাইহি ওয়া সাল্লাম দিয়েছেন তার চেয়ে।

পুরুষদের পারফিউম হলো যার গন্ধ প্রকাশমান কিন্তু রং লুকায়িত। আর মেয়েদের পারফিউম হলো যার রং প্রকাশমান কিন্তু গন্ধ লুকায়িত। সুনবহানআল্লাহ্‌। হোয়াট এ নাইস ডেসক্রিপশন!!

নবীজী হযরত মুহাম্মাদ সা বলেন, এ পৃথিবীতে আমার পছন্দের জিনিস হচ্ছে নারী ও পারফিউম। আর আমার চোখের শীতলতা সালাতে।

ওয়াল্লাহি, কত সুন্দর কথা। এতো স্পষ্ট সুন্দর সত্য কথা পারবে কেউ বলতে?

https://sunnah.com/search/?q=Women+Perfume

আল্লাহ্‌ ‘কী’ জানতেন যা ফেরেশতারা জানতো না?

আধুনিক বিশ্বের জনক হলো ইয়াজুজ মাজুজ। তারা বিশ্বের সকল মানুষকে তাদের কার্বন কপিতে পরিণত করেছে। ইয়াজুজ মাজুজের কাজই হলো জমীনে ফ্যাসাদ সৃষ্টি করা। জমীনের সবকিছু দূষিত করে ফেলা। হোক তা নদী, সমুদ্র, বন জঙ্গল! শিল্প নগরায়নের মাধ্যমে আকাশকে ধোঁয়া দিয়ে তারা বিষাক্ত করে ফেলছে। এমনকি মহাকাশকেও তারা তাদের আবর্জনা দিয়ে দূষিত করে ফেলছে। তারাই হলো ফাসেকিন বা বিপদগামী। তাদের সম্বন্ধে আল্লাহপাক বলেন,

” (বিপথগামী ওরাই) যারা আল্লাহর সঙ্গে অঙ্গীকারাবদ্ধ হওয়ার পর তা ভঙ্গ করে এবং আল্লাহ পাক যা অবিচ্ছিন্ন রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন, তা ছিন্ন করে, আর পৃথিবীর বুকে ফ্যাসাদ সৃষ্টি করে। ওরা যথার্থই ক্ষতিগ্রস্ত।” (২ঃ২৭)

এদের সম্পর্কেই ফেরেশতারা আল্লাহপাকের কাছে জানতে চেয়েছিল,
” আপনি কি পৃথিবীতে এমন কাউকে সৃষ্টি করবেন যারা ফ্যাসাদ সৃষ্টি করবে এবং রক্তপাত ঘটাবে?”

প্যাক্স ব্রিটানিকা, প্যাক্স আমেরিকানা এবং প্যাক্স জুদাইকা হলো ইয়াজুজ মাজুজদের খিলাফত।

কিন্তু আল্লাহপাক ফেরেশতাদের বলেন, “ইন্নি আয়লামু মা লা তায়লামুন। নিশ্চয়ই আমি যা জানি তোমরা তা জানো না।” সেটা কী? সেটা হলো ইতিহাসের সমাপ্তি হবে মিথ্যের উপর সত্যের চূড়ান্ত বিজয়ের মাধ্যমে। ইসলামী খিলাফত বা বাইবেলের ভাষায় “আল্লাহর সাম্রাজ্য”-এর চূড়ান্ত বিজয়ের মাধ্যমে।

দ্বিতীয় জন্ম

প্রতিটি মানুষের দুইবার মৃত্যু হয় ও দুইবার জন্ম হয়। ইসলামী যুগেরও দুইবার জন্ম হবে। একবার হয়েছে, রাসুলুল্লাহ (সা) এর সময়। আইয়ামে জাহিলিয়ার সমাপ্তির মাধ্যমে ইসলামী যুগের সুচনা হয়। দ্বিতীয়বার হবে, আখেরি জামানায় সেক্যুলার বিশ্ব নামের আরেকটি আইয়ামে জাহিলিয়ার পর।

“কেমন করে তোমরা আল্লাহর ব্যাপারে কুফরী অবলম্বন করছ? অথচ তোমরা ছিলে নিষ্প্রাণ। অতঃপর তিনিই তোমাদেরকে প্রাণ দান করেছেন, আবার মৃত্যু দান করবেন। পুনরায় তোমাদেরকে জীবনদান করবেন। অতঃপর তাঁরই প্রতি প্রত্যাবর্তন করবে।” [আল কুরআন ২ঃ২৮]

আমার উম্মতের উদাহরণ তো বৃষ্টির মত। আমি জানিনা এর প্রথম বর্ষণ বেশী ভালো নাকি শেষ বর্ষণ। — রাসুলুল্লাহ হযরত মুহাম্মদ (সা)। — এখন শেষ বর্ষণের জন্য অপেক্ষা।

Md Arefin Showrav

নারী পুরুষের সম্পর্ক ও আখেরী জামানাহ

ইসলাম নারী পুরুষের সমন্বয়ে একটি গতিশীল সমাজব্যবস্থায় বিশ্বাসী। নারীদের জন্য সবচেয়ে বেশী জরুরী হচ্ছে তার যৌনতা ও নিরাপত্তা। নারীদের মা হওয়াও এতো জরুরী নয় যতটা বেশী জরুরী সে যৌনতার দিক দিয়ে সেটেলড থাকা। দাজ্জালী সমাজব্যবস্থায় নারীদের ক্যারিয়ারকে বড় করে দেখানো হয়। পলিগ্যামি ও মাল্টিম্যারেজকে সমার্থকরূপে দেখানো হয়। পলিগ্যামি মানে বহুবিবাহ / মাল্টিম্যারেজ মানেও বহুবিবাহ। কিন্তু এটা আমাদের কাছে আশ্চর্য বিষয় নয় যে আমরা যারা শেষ যুগ বিষয়ে অধ্যয়ন করি, দাজ্জালী সমাজব্যবস্থায় পলিগ্যামি নিষিদ্ধ নয়। কিন্তু মাল্টিম্যারেজ নিষিদ্ধ। ঘরে এক স্ত্রী রেখে আরো অসংখ্য নারীর মধুপান করলেও তা দোষনীয় নয়। পৃথিবীর কোন আদালতে এর বিচার হবে না। অধিকন্তু সেই স্ত্রী নারীটি যদি স্বামীর এ লাম্পট্যের কথা প্রকাশ করে তাহলে স্ত্রী বেচারাকেই সমাজের কাছে হাস্যস্পদ হতে হয়। মানুষ বলে, আরে, পুরুষের ও একটু আধটু মুদ্রাদোষ থাকেই। বর্তমান জমানায় এর চেয়ে ভালো ছেলে কোথায় পাবে? অথবা মন্তব্য জোটে, তুমিই বোধহয় তোমার স্বামীকে খুশী রাখতে পারো নি। এক কথায় পলিগ্যামির কোন বিচার নেই। ওয়েস্টার্ণ কালচারে যান, বা ওয়েস্টার্ন কালচারে অভ্যস্ত আমাদের দেশের শো বিজ জগত বা সভ্য সমাজে তাকান পলিগামি সেখানে কোন বিষয় নয়, বরং ডালভাত। কিন্তু আপনি যে মেয়েটার সাথে যৌনতা করতে চান তাকে কিছু স্বর্ণ বা মুদ্রা মোহরানা দিয়ে তাকে সম্মানিতা করুন, তার জীবনের চলার পথে সাথী হোন, তখন সবাই বলবে, আরে বাপরে বাপ, কত বড় আনকালচার্ড। ছিঃ এই যুগে কেউ দুই বিয়ে করে? হয়তো আপনার প্রথমা স্ত্রীর বাপ ভাইয়েরা বলবে, এই একে জেলে ঢুকানোর ব্যবস্থা করা হোক। আমাদের মেয়ে সতীনের সংসার করবে, হতেই পারে না। — আসলে এই লোকগুলোই দাজ্জালী সমাজব্যবস্থার ব্রেন ওয়াশড প্রোডাক্ট। তারা মোটেই ইসলাম বুঝে নাই। হতে পারে তারা আলেম মাওলানা মুফতি, কিন্তু তাদের ব্রেনে দাজ্জালের পেশাব ছাড়া আর কিছুই নেই। আমার পরিচিত এক ব্যক্তি দ্বিতীয় বিয়ে করাতে তার শ্বশুরবাড়ি থেকে এসব সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিল। সে লোকগুলো আলেম ছিল, হাফেজ ছিল।

একটি গতিশীল সমাজব্যবস্থার জন্য পলিগ্যামি অপরিহার্য। ইসলাম কিন্তু পলিগ্যামিকে উৎসাহিত করে। তবে তা নিয়মের মাধ্যমে। সেটা হলো মাল্টিম্যারেজ। মাল্টিম্যারেজ যে শুধু ছেলেদের জন্যই তা কিন্তু নয়। অনেকে ভুলবশত মনে করে ইসলাম শুধু ছেলেদের মাল্টিম্যারেজের অধিকার দিয়েছে। একেবারে ভুল তথ্য। মেয়েরা স্বামী থেকে তালাক নিয়ে বা বিধবা হলে ইদ্দত পালনের পর পুনরায় বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারে। সন্তানের পিতা নির্ণয়ের জন্যই এটা জরুরী। স্বামীকে যদি ভালো না লাগে বা তার ভরণপোষনে সন্তুষ্ট না হলে একজন নারীর সুযোগ আছে তার থেকে বিচ্ছেদ নিয়ে অন্য স্বামী গ্রহণ করার। ইসলাম গতিশীল। ইসলাম মানুষের শারীরিক ও মনের চাহিদাকে মূল্যায়ন করে।

একজন নারী রাসূল ছাল্লাল্লাহু য়ালাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে এসে বলেন, আমি আমার স্বামী থেকে তালাকের পর ইদ্দত পালন শেষ দ্বিতীয় একজন ব্যক্তিকে বিয়ে করি। কিন্তু এর কাছে তো কাপড়ের পুটলির মতো ছাড়া আর কিছুই নেই। বলে তিনি তার চাদর দিয়ে কাপড়ের পুটলি বানিয়ে দেখাতে লাগলেন। নবীজী সা মুচকি হেসে বললেন, এখন কি তাহলে তুমি আগেরজনের কাছে ফিরে যেতে চাও? কিন্তু তা হবে না যতক্ষণ তুমি তার মধু পান না করছো এবং সে তোমার মধু পান না করছে। লা- হাত্তা তাযুকি উসাইলাতাহু ওয়া ইয়াযুকা উসাইলাতাক।

আজ এই আধুনিক সমাজে কোন নারী এই স্বাধীনতা প্রকাশ করতে পারবে? হয়তো হৃদয়ের চাহিদাকে মেরে ফেলে মুখ বুজে সব মেনে নিবে অথবা অন্তরের বাসনা পূরণ করার জন্য হারাম উপায়ের আশ্রয় নেবে। আর আধুনিক যুগে হারাম উপাদান, হারাম সম্পর্ক, হারাম মানুষ হাতের নাগালে, সহজলভ্য। বরং বিবাহ তালাক সব কিছু এমন কঠিন করে ফেলা হয়েছে যে মানুষ সহজে হালাল রাস্তা অবলম্বন করতে চায় না।

আজকের যুগের অনেক আলেম উলামা রাসূল সা এর অনেক স্ত্রী নিয়ে মনে হয় বিব্রত বোধ করেন। তারা মিনমিনে স্বরে ব্যাখ্যা দেয়ার চেষ্টা করেন যে, এতোগুলো স্ত্রী আসলে ইসলামের প্রয়োজনে ছিল। দ্বীনের দাওয়াতের সুবিধার জন্য। কিন্তু তারা কাদের কাছে সংকোচ বোধ করেন? যেসব মুনাফিক কাফেররা নিজেরাই পলিগ্যামির জীবনে অভ্যস্ত তাদের কাছে কিসের সংকোচ? আলেমরা কেন উঁচু গলায় বলেন না, পলিগ্যামি ও মাল্টিম্যারেজ রাসূল সা-এর প্রিয় সুন্নত। নারী ও পারফিউম। আর চোখের শীতলতা ছিল সালাতে। এতে দ্বীনের স্বার্থ যেমন ছিল তার চেয়ে কোন অংশে কম ছিল না নারী ও পুরুষদের যৌন ও সামাজিক জীবন পবিত্র ও গতিশীল রাখার উদ্দেশ্য। শুধুমাত্র মিসওয়াক ও ঢিলা কুলুখের সুন্নত পালন করলে হয়তো শরীর পরিষ্কার থাকবে। কিন্তু মাল্টি ম্যারেজের সুন্নত সমাজে চালু হলে সমাজ পবিত্র থাকবে।

যেসব নারীরা দ্বীনী বিষয়ে অগ্রগামী তারাও বিষয়টিকে মেনে নিতে পারেন না। যদি তারা রাসূল সা এর এই সুন্নতকে মন প্রাণ দিয়ে গ্রহণ না করেন তবে আমার আশংকা হয় তারা শেষ যুগে দাজ্জালের দলেই থাকবেন, ইমাম মাহদী য়ালাইহিস সালামের দলে শামিল হতে পারবেন না।

২।। উম্মুল মু’মিনীনদের মধ্যে হযরত যায়নাব বিনতে জাহাশ রাযি আমার খুব বেশী প্রিয়। তিনি সেই সাহাবী যার থেকে ইয়াজুজ মাজুজের প্রাচীর ছিদ্র হওয়ার হাদীসটি প্রকাশ পেয়েছে। তাই ইসলামী ইস্কেটোলজির একজন ছাত্র হিসেবে তার প্রিয় হওয়ার কারণ আছে। এছাড়া তার মাধ্যমে শেষ যুগের বিয়ে শাদী সম্পর্কিত অনেক মাসায়েল আদব ও আচার অনুষ্ঠান শিক্ষা দেয়া হয়েছে।

তিনি এমন একজন মানুষ যার কথা কুরআনে এসেছে। তিনি ছিলেন হযরত যায়েদ রাযি এর স্ত্রী এবং রাসূল সা এর ফুফাতো বোন। যায়েদ রাযি ছিলেন রাসূল সা এর প্রথমা স্ত্রী হযরত খাদিজা রাযি এর গোলাম। রাসূল সা পরে তাকে আযাদ করে পোষ্য হিসেবে গ্রহণ করেন। যায়েদ রাযি প্রথম চার জনের একজন যারা ইসলাম গ্রহণ করেন। কিন্তু কুরাইশ বংশীয় নারী হিসেবে একজন আযাদ হওয়া গোলামকে যায়নাব রাযি মেনে নিতে পারছিলেন না। তাদের সম্পর্ক ভালো যাচ্ছিল না। যায়েদ রাযি-ও তালাক দিতে চাচ্ছিলেন। রাসূল সা যায়েদ রাযি কে উপদেশ দেন সম্পর্কটাকে ধরে রাখতে। কিন্তু আল্লাহ্‌র ইচ্ছা ছিল ভিন্ন। আল্লাহ্‌র ইচ্ছা ছিল যায়নাব রাযি রাসূল সা এর স্ত্রী হবেন।

ইসলাম ধর্ম কিন্তু যায়েদ বা যায়নাব রাযি কে বাধ্য করেনি তার মনের বিপরীতে সংসার করার জন্য। কারণ ইসলাম হচ্ছে গতিশীল। যায়েদ কর্তৃক তালাক প্রদানের পর ইদ্দত পূর্ণ হলে আল্লাহ্‌র রাসূল যায়েদ রাযি-কে পাঠালেন তার পক্ষে বিয়ের প্রস্তাব দিতে। দেখুন ইসলাম কিন্তু এমন করেনি যে তালাকের মাধ্যমে সম্পর্ক চিরশত্রুতায় রূপ নেবে। বরং গাইরে মাহরাম হিসেবে একজন মুসলমানের সাথে আরেকজন মুসলমানের যতটুকু সম্পর্ক থাকা দরকার ততটুকুই থাকবে।

যায়েদ রাযি তার কাছে গেলেন। সে সময় যায়নাব রাযি আটার খামীর বানাচ্ছিলেন। যায়েদ রাযি বলেন, যায়নাবকে দেখে আমার খুব গুরুগম্ভীর ও মর্যাদাসম্পন্ন মনে হলো। কেননা খোদ রাসূল সা তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছেন। তাই আমি তার দিকে তাকাতে পারলাম না। আমি তার দিকে পিঠ ফিরিয়ে বললাম, হে যায়নাব, রাসূল সা আমাকে তোমার কাছে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে পাঠিয়েছেন। যায়নাব রাযি বললেন, আমি আমার রবের সাথে পরামর্শ ছাড়া কিছু করতে পারি না। তাই তিনি ইস্তেখারার সালাত পড়তে চলে গেলেন। এদিকে কুরআনে আয়াত নাযিল হলো, তাই রাসূল সা এর জন্য আর অনুমতি নেয়ার প্রয়োজন হলো না। তিনি যায়নাবের ঘরে গেলেন। বেশ বেলা হলে রাসূল সা সবাইকে রুটি ও গোশত খাওয়ালেন। এভাবেই রাসূল সা একটি বকরি জবাইয়ের মাধ্যমে যায়নাব রাযি এর বিয়ের ওয়ালিমা করলেন। রাসূল সা আর কোন স্ত্রীর জন্য এতো আয়োজন করেন নি।

উপস্থিত লোকদের অনেকে চলে গেলেও কিছু লোক বসে রইল। ফলে রাসূল সা-ও বসে রইলেন আর যায়নাব রাযি ঘরের দেয়ালের দিকে মুখ ফিরিয়ে বসে রইলেন। তখন আল্লাহ্‌ আয়াত নাযিল করলেন যাতে গৃহস্বামীর বাড়ির আদবের প্রতি লক্ষ্য রাখা হয়। অযথা গল্পে মশগুল হয়ে যেন বাড়ির মালিককে কষ্ট দেয়া না হয়।

এরপর পর্দার আয়াত নাযিল হলো। আনাস রাযি ঘরে প্রবেশ করতে গেলে রাসূল সা পর্দা টেনে আড়াল করে দিলেন।

৩।। আজকাল বেগানা নারী পুরুষের মধ্যে আড্ডা দেয়ার প্রবণতা বেড়েই চলেছে। এরকম আড্ডা থেকেই কত যে কেলেঙ্কারী হয়। ঘরে স্ত্রী রেখে বাহিরে বন্ধু বান্ধবীদের সাথে আড্ডায় সময় নষ্ট করাকে পৃথিবীর কোন আইন নিষেধ করবে না। এখান থেকেই উৎপন্ন হয় মাদকসেবীরা, ড্রিঙ্কস করে আর নাচে গানে ভরপুর করে তোলে। কিন্তু যখন বলা হয় এরকম আড্ডা দিয়ে নিজের জীবনকে ক্ষত বিক্ষত না করে বিয়ে করো, আড্ডা দিতে চাও তো একাধিক বিয়ে করো। কি বলবে সভ্যসমাজ কল্পনা করতে পারেন?

রাসূল সা এর নয় জন স্ত্রীর মধ্যে তিনি পালাবন্টন করে থাকতেন। প্রথম স্ত্রীর ঘরে নবম দিনে এসে পৌঁছতেন। যে ঘরে নবী সা যেতেন সেই ঘরে সব স্ত্রী এসে রাতের প্রথম ভাগে একত্রিত হতেন। কত যে হৃদয়ের অনুভব হাসি মান অভিমান সেসবে জড়িয়ে ছিল তা অধমের কলম ধারণ করতে অক্ষম। বাতিহীন অন্ধকার ঘরগুলোতে আলো হতো জান্নাত থেকে। একদিন নবিজী সা আয়েশা রা এর ঘরে ছিলেন। ইতিমধ্যে যায়নাব রাযি এলেন। রাসূল সা তার দিকে হাত বাড়ালেন। আয়েশা রাযি বললেন, এ তো যায়নাব। তখন নবী সা হাত গুটিয়ে নিলেন। এ নিয়ে আয়েশা ও যায়নাব রাযি বাক্য বিনিময় করলেন। এমনকি তা কথা কাটাকাটিতে পরিণত হলো। ইতিমধ্যে সালাতের ইকামত দেয়া হলো আর আবু বকর রাযি সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের কথা শুনতে পেলেন। তিনি বললেন, হে আল্লাহ্‌র রাসূল আপনি ওদের এসব রেখে সালাতের জন্য আসুন তো।

নবীজি সা বেরিয়ে গেলে আয়েশা রাযি বললেন, এখনই সালাত শেষ হবে আর আমার পিতা আবার আসবেন এবং আমার সাথে যা আচরণ করার তাই করবেন। নামায শেষ হলে আবু বকর রাযি আবার আসলেন, এবং কঠোর ভাষায় তার মেয়েকে (আয়েশা রাযি) তিরস্কার করলেন, “তুমি কি তার সাথে (যায়নাব রাযি) এমন আচরণই করে থাকো?”

সতীনের সাথে কিরূপ আচরণ করতে হয় তা আমাদের বাবারা তাদের মেয়েদের শিক্ষা দিবেন কবে? আজকাল তো সতীন থাকলে মা বাবা তাদের কুমারী মেয়েদের সেখানে বিয়েই দেন না। যেন এটা বিরাট এক অপরাধ।

৪।। আর আমাদের মেয়েরাই বা কবে সতীনের সাথে হাসি আনন্দ মান অভিমানে সময় কাটিয়ে জীবনকে স্মৃতিময় করে রাখবেন? টিভি সিরিয়াল বা সিনেমা দেখে আমাদের মেয়েরা তো ব্রেন ওয়াশড, সতীন মানেই ঝগড়া, সতীন মানেই তার একার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

রাসূল সা এর এক স্ত্রী ছিলেন সাওদা রাযি। তিনি ছিলেন অত্যন্ত কঠোর প্রকৃতির মহিলা। কিন্তু আয়েশা রাযি তাকে এতো বেশী ভালোবাসতেন যে আয়েশা রাযি-র কাছে তার চেয়ে বেশী প্রিয় কোন স্ত্রীলোক ছিল না। আয়েশা রাযি বলতেন, ইস্ সাওদার দেহের ভেতর যদি আমি থাকতে পারতাম। অর্থাৎ আমি যদি সাওদা হতাম। সাওদা রাযি-র বয়স যখন একটু বেড়ে যায় তখন এমনকি তার পালার দিন তিনি আয়েশা রাযি কে দিয়ে দিলেন। সুতরাং আয়েশা রাযি রাসূল সা-কে দুই দিন পেতেন।

রাসূল সা-ও আবার তার সব স্ত্রীর দিকে নযর রাখতেন। উম্মু সালামা রাযি-র সাথে বিয়ের পর তার সাথে একাধারে ৩ দিন থাকেন। তারপর তাকে বলেন, তুমি তোমার স্বামীর কাছে নগণ্যা নও। আমি চাইলে তোমার কাছে ৭ দিনও থাকতে পারি, তবে সেক্ষেত্রে আমার অন্যান্য স্ত্রীদের কাছেও তো ৭ দিন থাকতে হবে। এভাবে বুঝিয়ে বলেন।

আমরা জীবনে কতদিন আমাদের ‘এক স্ত্রীর’ কাছে একথা বলেছি, তুমি তোমার স্বামীর কাছে নগণ্যা নও? বরং সেই এক স্ত্রী-ই যে কত নগণ্য তার প্রমাণ হরহামেশাই দেয়া হয় আর তা লোকেদের চোখও এড়ায় না।

৫।। আজকাল মেয়েরা স্বামীর সাথে কিভাবে মজা করতে হয় তাও বোধহয় ভালোভাবে জানে না। শুধু তাদের চাহিদা ঠিকঠাক পূরণ হলেই হলো। ফলে সংসার থেকে বিদায় নেয় আমোদ আনন্দ। আর জীবন হয়ে পড়ে একঘেয়ে। ফলে মানুষ আনন্দের জন্য পিকনিক জন্মদিন কত কিছুই না করে।

একবার ওমর রাযি এর মেয়ে হাফসা রাযি-র ঘরে গেলে তিনি রাসূল সা-কে মধুর শরবত পান করান। রাসূল সা -এর অন্য স্ত্রীরা ফন্দি করলেন কিভাবে একটা মজা করা যায়। রাসূল সা সাওদা রাযি -র কাছে গেলে তিনি বললেন, হে আল্লাহ্‌র রাসূল, আপনি কি মাগাফির খেয়েছেন? তিনি বললেন, না তো। সাওদা রাযি বললেন, তাহলে এই দুর্গন্ধ কিসের? রাসূল সা বললেন, হাফসা আমাকে মধুর শরবত পান করিয়েছে। সাওদা বললেন, হুম, তাহলে মৌমাছি বোধহয় মাগাফির ফুল থেকে মধু পান করেছে। রাসূল সা এর মুখ থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে এটা শুনে নবীজী খুবই বিব্রত হলেন।

একটু পর প্লান অনুযায়ী আয়েশা রাযি একইভাবে তাকে বললেন, হে আল্লাহ্‌র রাসূল, গন্ধ কিসের? আবার একটু পর সাফিয়া রাযি -ও একইরূপ কথা বললেন।

এদিকে হাফসা রাযি এতো ঘটনা জানেন না। পরবর্তীতে রাসূল সা আবার হাফসা রাযি-র কাছে গেলে তিনি বললেন, হে আল্লাহ্‌র রাসূল! আমি কি আপনাকে ঐ জিনিস (মধুর শরবত) পান করাবো? রাসূল সা বললেন, না আমার আর তাতে প্রয়োজন নেই।

ফলে রাসূল সা -এর স্ত্রীরা খুব দুঃখ পেলেন, সাওদা রাযি বলতে লাগলেন, “সুবহানআল্লাহ, আল্লাহ্‌র শপথ, আমরা তার জন্য তা হারাম করে দিলাম?” আয়েশা রাযি, বলতে লাগলেন, “চুপ করো।” হাসিখুশি মজা করতে গিয়ে সবাই দুঃখভারাক্রান্ত হয়ে পড়লেন।

৬।। আমাদের মেয়েরা কোনভাবেই স্বামীকে শেয়ার করতে চায় না। রাসূল সা-কে এজন্য কোন অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়তে হয়নি। রাসূল সা এর স্ত্রীরা তাদের স্বামীকে শেয়ার করতে কোন সংকোচ বোধ করেন নাই। এতে তাদের মান ইজ্জত মাটিতে মিশে যায় নাই। আমাদের মেয়েরা কি রাসূল সা এর স্ত্রীদের চেয়েও নিজেকে মূল্যবান মনে করেন?

রাসূল সা এর স্ত্রীরা নিজের থেকে তার জন্য পাত্রী খুঁজে আনত। আবু সুফিয়ান রাযি এর মেয়ে উম্মু হাবীবা রাযি একবার রাসূল সা কে বলে বসলেন, আমার বোনকে কি আপনার প্রয়োজন আছে? রাসূল সা বললেন, তার জন্য আমি কি করতে পারি বলো। উম্মু হাবীবা বলেন, তাকে বিয়ে করুন। রাসূল সা বললেন, তুমি কি তা চাইবে? উম্মু হাবীবা রাযি বললেন, কেন নয়? শুধু একাই তো আমি আপনার স্ত্রী নই। আপনার তো আরো স্ত্রী আছে। আর ভালো কাজে যে আমার অংশীদার হবে সে আমার বোন হোক তা আমি সবচেয়ে ভালো মনে করি। রাসূল সা বললেন, সে আমার জন্য হালাল নয়। উম্মু হাবীবা তখন বললেন, তাহলে আপনার আরেক স্ত্রী উম্মু সালামার আগের ঘরের মেয়ে দুররাকে। রাসূল সা বললেন, সেও তো আমার জন্য হালাল নয়। কারণ সে আমার স্ত্রীর গর্ভজাত সন্তান। আর তাছাড়া উম্মু সালামার আগের স্বামী আবু সালামা সে তো আমার দুধ ভাই। হালিমার কাছে যাওয়ার পূর্বে আবু লাহাবের দাসী সুয়াইবিয়া কিছুদিন রাসূল সা কে দুধ পান করিয়েছিলেন। আবার আবু সালামাও সুয়াইবিয়ার দুধ পান করেছেন। আর দুধ চাচার সাথে আপান চাচার মতোই বিয়ে হারাম। সুতরাং তোমরা আমার কাছে তোমাদের কন্যা ও বোনদের বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে এসো না।

৭।। এভাবে ইসলাম মানুষের দাম্পত্য জীবন বা যৌন জীবনকে সবসময় গতিশীল রেখেছে। বিয়ে শাদীর এতো উদার নীতির পরও ইসলাম মালাকাল ইয়ামীনের ব্যবস্থা রেখেছে। মালাকাল ইয়ামীন হলো মালিকানাভুক্ত নারী। ইংরেজীতে এদের বলে Right hands possess, এরা দাসী নয়। বরং এসব নারীরা নিজের থেকে নিজেকে কোন পুরুষকে দান করে। শেষ যুগে মালাকাল ইয়ামীনের বিরাট ভূমিকা আছে। দাজ্জালী সমাজ আমাদের মালাকাল ইয়ামীন শব্দটা ভুলিয়ে দিয়েছে। আলেম উলামারাও এখন শব্দটি ব্যবহার করতে লজ্জা পান। বিব্রত বোধ করেন। কিন্তু রাসূল সা যা পছন্দ করতেন তা নিয়ে বিব্রত হওয়া কি কোন শুভ কাজ হতে পারে?
রাসূল সা তার জীবনের শেষ কথা বলেছেন, সালাত, সালাত, আল্লাহ্‌কে ভয় করো তোমার মালাকাল ইয়ামীনদের ব্যাপারে। আজকে আলেমদের কাছে এই হাদীস শোনা যায় না। তার মালাকাল ইয়ামীনদের কথা উচ্চারণ করেন না। কখনো যদিওবা করেন, তবে তার ভুল ব্যাখ্যা করেন। মালাকাল ইয়ামীনদেরকে দাসী বলেন।

আয়েশা রাযি তাদের প্রতি ঈর্ষা পোষণ করতেন যেসব নারী নিজেদের রাসূল সা এর প্রতি হেবা বা দান করেছিলেন। তিনি ভাবতেন কোন নারী কি নিজেকে একজন পুরুষের কাছে দান করতে পারে? কিন্তু আল্লাহ্‌ তায়ালা আয়াত নাযিল করলেন, “হে নবী যেসব মেয়েরা আপনার জন্য নিজেদের দান করে তাদের মধ্যে যাকে ইচ্ছা আপনি নিজের কাছে স্থান দিন, যাকে ইচ্ছা দূরে সরিয়ে দিন।” এই আয়াত নাযিল হওয়ার পর আয়েশা রাযি রাসূল সা-কে বললেন, ওয়াল্লাহি, আমি দেখছি, আল্লাহ্‌ তো আপনার ইচ্ছা মাফিক দ্রুত হুকুম নাযিল করেন।

কাজেই এমন সমাজ ব্যবস্থায় নারী পুরুষের যৌনতার স্বাধীনতা হালাল উপায়ে সংরক্ষিত হয়। এটাই রাসূল সা-এর সুন্নাত। আর এটাই কাফের সমাজের বাছবিচারহীন পলিগ্যামির সাথে মুসলিম সমাজের পলিগ্যামির পার্থক্য গড়ে দেয়। যেখানে কাফেরদের সমাজ মুখ থুবড়ে পড়ে, সেখানে মুসলমানদের সমাজ সচল ও গতিশীল থাকে।

একজন নারীর স্বাধীনতা চাকরী করার মধ্যে নয়, ডাক্তার ইঞ্জিনীয়ার, পাইলট, জজ ব্যারিস্টার হওয়ার মধ্যে নয়। একজন নারীর স্বাধীনতা হালাল উপায়ে তার যৌন ইচ্ছা পূরণ করার মধ্যে। ইসলাম নারীদের এই সম্মান দিয়েছে। আর কাফের ও মুনাফিকরা নারীদের যৌন আকাঙ্খাকে পূজি করে তাদের পণ্য বানিয়েছে।

মুসলিম সমাজের উচিৎ লক্ষ লক্ষ টাকা দেনমোহর, গায়ে হলুদ, লক্ষ লক্ষ টাকা খরচ করে ওয়ালিমার ভোজ খাওয়ানো ইত্যাদি অপ্রয়োজনীয় বিষয় পরিত্যাগ করা ও ইসলাম নির্দেশিত নারী পুরুষের সম্পর্কের গতিময়তাকে বাঁধা না দেয়া।

হাল আমলে কিছু সুন্নতপ্রেমী লোকদের মধ্যে মসজিদে বিয়ে করানো, ইজতেমায় বিয়ে করানো, ফাতেমী মোহর প্রদান করা ইত্যাদি বিষয়ে সুন্নতের নামে খুব বাড়াবড়ি লক্ষ্য করা যায়। অথচ এগুলো আদৌ উল্লেখযোগ্য কোন আমল নয়। বরং বহুবিবাহ, মোহর, মালাকাল ইয়ামীন, তালাক ইত্যাদি যেসব বিষয়ে আমাদের ধর্মগ্রন্থ কুরআন ও হাদীসে বারবার আলোচনা করা হয়েছে সেসব বিষয়ে মানুষ কতই না উদাসীন। মুসলমানদের পুনরায় একটি শক্তিশালী সমাজ গঠনের জন্য মূলের দিকে ফিরে আসার কোন বিকল্প নেই।

ছবি গ্যালারীঃ

মালাকাল ইয়ামীন সম্পর্কে জানতে পড়ুন –

বিয়ে-শাদী এবং আখেরী জামানাহ

সুলাইমান (আ) এবং সেই বাচ্চাটি

সুলাইমান য়ালাইহিস সালামের ঘটনা আজকে আমাদের মুসলিম সমাজে বাস্তব রূপ লাভ করিয়াছে। ইসলাম নিয়া টানা হেঁচড়া চলিতেছে। সবাই বলিতেছে, তাহার কাছে যা আছে ইহাই আসল ইসলাম। সকলেই ইসলামকে টুকরা টুকরা করিয়া কাটিয়া নিজের নিজের অংশ লইয়া যাইতেছে। কেহ কেহ দলিল দস্তাবেজ করিয়া রীতিমত বিচারক নিয়োগ করিয়া ফেলিয়াছে যে, তাহার দাবিই সঠিক। কিন্তু ইসলামের সম্মানের কথা কেহ ভাবিতেছে না। যাহারা ভাবিতেছে তাহারা সকল পক্ষ ও তাহাদের মুনাজির হইতে পৃথক হইয়া দূরে সরিয়া গিয়া কাঁদিতেছে। আপনারা কি সুলাইমান য়ালাইহিস সালামের সেই ঘটনাটি শুনেন নাই?

‘দু’জন মহিলার দু’টি বাচ্চা ছিল। একদিন নেকড়ে বাঘ এসে একটি বাচ্চাকে নিয়ে যায়। তখন প্রত্যেকে বলল যে, তোমার বাচ্চা নিয়ে গেছে। যেটি আছে ওটি আমার বাচ্চা। বিষয়টি ফায়ছালার জন্য দুই মহিলা খলীফা দাঊদের কাছে এলো। তিনি বয়োজ্যেষ্ঠ মহিলার পক্ষে রায় দিলেন। তখন তারা বেরিয়ে সুলায়মানের কাছে এলো এবং সবকথা খুলে বলল। সুলায়মান তখন একটি ছুরি আনতে বললেন এবং বাচ্চাটাকে দু’টুকরা করে দু’মহিলাকে দিতে চাইলেন। তখন বয়োকনিষ্ঠ মহিলাটি বলল, ইয়ারহামুকাল্লাহু ‘আল্লাহ আপনাকে অনুগ্রহ করুন’ বাচ্চাটি ঐ মহিলার। তখন সুলায়মান কনিষ্ঠ মহিলার পক্ষে রায় দিলেন’।

আজকে ঐ বাচ্চটির বদলে ইসলামকেই টুকরা টুকরা করিয়া কাটিয়া ফেলা হইয়াছে। কারো ভাগে পড়িয়াছে দাওয়াত, কারো ভাগে পড়িয়াছে যিকির, কারো ভাগে পড়িয়াছে জিহাদ, কারো ভাগে পড়িয়াছে ইলেম, কারো ভাগে পড়িয়াছে মাযহাব, কারো ভাগে পড়িয়াছে সহি হাদিস, কারো ভাগে পড়িয়াছে তবলীগ, কারো ভাগে সলফে সালেহীন, কারো ভাগে মিলাদ, কারো ভাগে কিয়াম ইত্যাদি নাম জানা অজানা হরেক রকমের আইটেম। যার ভাগে কিছুই পড়ে নাই সেও কিছু একটা লইয়া আকড়াইয়া ধরিয়া কহিতেছে, ইহাই ইসলাম।

যাহারা ইসলামের সম্মানের কথা চিন্তা করিয়া কিছু একটা দখল করিয়া দাঁড়াইয়া যায় নাই তাহারা পাগলদের হইতে বহুদূরে নির্জনে চোখের পানি ফালাইতেছে। ইয়ারহামুহুমুল্লাহ। আল্লাহ্‌ তায়ালা তাহাদের প্রতি রহম করুন।

পাশ্চাত্য সভ্যতা

পাশ্চাত্য সভ্যতার এই আধুনিকতাই তো আমরা চাই। এটাই চাই না? দুই দিন আগেও ভদ্রমহিলার সাথে সেলফি দিয়েছে। আর আজকে বলে, নাই। যাওয়ার আগে একটা কথা বলারও প্রয়োজন বোধ করে নাই।

Robert Homrich

Well, I guess I’m single again. I woke up and she’s gone and she took all her stuff with her. Left me in the middle of the night without saying a word. I must be a real piece of shit. 😢

– Robert Homrich
Lives in Michigan

একজন কমেন্ট করেছে, grab the guitar, play some rockn roll and don’t let it pull You down Bro

পৃথিবীর হৃদয়

সিরিয়ার দামেস্কে পৃথিবীর হৃদয় অবস্থিত। তাই সিরিয়া অশান্ত হয়ে উঠলে সমগ্র বিশ্ব অশান্ত হয়ে উঠবে এটাই স্বাভাবিক। আমরা সেটাই দেখতে পাচ্ছি। দিনকে দিন এই অবস্থা আরো খারাপ হচ্ছে। সমগ্র বিশ্বে যুদ্ধ যুদ্ধ পরিস্থিতি। শেখ ইমরান হোসেনের সাম্প্রতিক লেকচারটি কে কে দেখেছেন?? সেখানে একজন বাংলাদেশীর ই-মেইলের জবাবে তিনি বলেন, মালহামার পর আরব ও এর আশেপাশের এলাকা টিকে থাকবে। আরব, সিরিয়া, তুরস্ক টিকে থাকবে কারণ মালহামার পরের ঘটনা কন্সতুন্তিনিয়া বিজয়। রাশিয়া টিকে থাকবে, হয়তো ইউরোপীয় অংশ ধ্বংস হবে কিন্তু এশিয়ান অংশ টিকে থাকবে। চীন টিকে থাকবে কারণ চীন অনেক বড় দেশ এবং সে বিশ্বযুদ্ধের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে তার প্রয়োজনীয় জিনিসগুলি গ্রামাঞ্চলে স্থানান্তর করে। কিন্তু এশিয়ার দেশগুলো [বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া] ও আফ্রিকার দেশগুলোর কী হবে আমি জানিনা। আমি শুধু এটুকু বলতে পারি, যুক্তরাস্ট্র, কানাডা, ইউরোপ ছাইয়ে পরিণত হবে। আর আধুনিক সভ্যতা ধ্বংস হয়ে যাবে। কারণ তারা এত পাপ করেছে যা গণনা করা যাবে না। সুতরাং পাকিস্থান মালহামার পর টিকে থাকবে কী না আমি জানিনা।

Md Arefin Showrav